Skip to content

বিয়ের আগে কনে যেভাবে প্রস্তুতি নিতে পারেন

বিয়ে। মানুষের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। বিশেষ করে মেয়েদের ক্ষেত্রে বিয়ে নিয়ে এক ধরনের ফ্যান্টাসী কাজ করে। বিয়ের আয়োজন নিয়ে মেয়েদের মনে নানাধরনের ইচ্ছা, আকাঙ্ক্ষা ও স্বপ্ন বাসা বাঁধে। বিয়ের নানাবিধ কাজ ও মানসিক চাপের ফলে অনেকের চেহারাতেই ক্লান্তিভাব দেখা যায়। তাই, এটা দূর করতে আগে ভাগেই যত্ন নেয়া দরকার। 

আজকের পোস্টে আমরা এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনা করবো। এই পোস্টটি থেকে আপনি জানবেন বিয়ের আগে কনের বিশেষ প্রস্তুতি কি ধরনের হবে। কিভাবে ত্বকের যত্ন নিবেন ও কি কি খাবার খাবেন।

বিয়ের অন্ততঃ পনেরো দিন আগে থেকে ত্বকের আলাদাভাবে যত্ন নেয়া প্রয়োজন। যাতে বিয়ের দিন কনেকে পরিচ্চছন্ন ও পরিপাটি দেখায়। সঠিক নিয়মে ত্বক ও চুলের যত্ন নিলে ও পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকলে  ত্বক ও চুলের যেকোনো সমস্যা প্রতিহত করা সম্ভব।

বিয়ের আগে কনে কিভাবে ত্বকের যত্ন নিবেনঃ

বিয়ের আগে কনে বাসায় কিছু নিয়ম মেনে ত্বকের যত্ন নিতে পারেন। এতে আপনার ত্বক মসৃণ ও উজ্জ্বল হবে।

১। দিনে দুইবার ভালো কোনও ক্লিনজার দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করুন। পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে শুকিয়ে এলে টোনার দিয়ে মুখ মুছে নিন। এরপর আপনার ত্বকের জন্য উপযোগী ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

২। অতিরিক্ত চা, কফি এড়িয়ে চলুন। কারণ, এগুলোতে থাকা ক্যাফেইন নার্ভ উত্তেজিত করে এবং শরীর থেকে প্রয়য়োজনীয় পানি ও অন্যান্য খনিজ উপাদান বের করে দেয়।

৩। দিনে ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি ও ফলের রস খান।

৪। প্রচুর পানি খেতে চেষ্টা করুন, দিনে অন্ততঃ ৭-৮ গ্লাস পানি পান করার চেষ্টা করুন।

৫। ভিটামিন এ, ই, জিংক এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার খেতে চেস্টা করুন।

৬। বাইরে যাওয়ার আগে অবশ্যই সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যবহার করবেন।

৭। দিনে অন্ততঃ আট থেকে নয় ঘণ্টা ঘুম, পরিমিত খাবার ও পর্যাপ্ত পানি খান।

৮। প্রখর রোদের তাপ এড়িয়ে চলুন।

ত্বকের যত্ন নিতে ঘরে তৈরি বেশ কিছু ফেস প্যাকও ব্যবহার করতে পারেন। যেমনঃ

১। ত্বকের দাগ দূর করতে পাকা পেঁপের ফেসপ্যাকঃ ত্বকের যেকোনো দাগ দূর করতে পাকা পেপে অনেকটা ম্যাজিকের মত কাজ করে। কয়েক টুকরা পাকা পেপে চটকে তাতে কয়েক চামচ টকদই মিশিয়ে একটি ফেসপ্যাক বানিয়ে নিন। এবার এই প্যাকটি মুখের ত্বক ও গলায় লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে স্পঞ্জ দিয়ে মুছে নিন। এরপর মুখ ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২। ত্বক নরম করতে পাকা পেঁপে ও মধুঃ ত্বকের দাগ দূর করার পাশাপাশি পাকা পেঁপে ত্বক আর্দ্র ও নরম করে থাকে। এজন্য পাকা পেঁপে চটকে এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে মুখ, গলা ও হাতে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে দিন। কিছুটা শুকিয়ে এলে কুসুম গরম পানি দিয়ে আলতোভাবে ম্যাসেজ করে তুলে ফেলুন।

৩। ত্বক উজ্জ্বল করতে চালের গুড়া, টকদই, মুলতানি মাটি ও কমলালেবুর খোসার গুঁড়া একত্রে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে মুখে এবং গলায় লাগান। এই প্যাক নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক উজ্জ্বল ও সতেজ হবে।

৪। ত্বকের রুক্ষতা ও দাগ দূর করতে পাকা কলা, লেবুর রস ও মধুও বেশ উপকারী। এই প্যাক তৈরির জন্য একটি পাকা কলা, ১ চামচ লেবুর রস ও এক চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার এই প্যাক মুখে লাগিয়ে বিশ মিনিট রেখে দিন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে আলতো করে ম্যাসেজ করে তুলে নিন।

৫। কোনও কিছু ব্যবহার করার পর যদি অ্যালার্জি সৃষ্টি হয় তবে তা এড়িয়ে চলুন।

৬। মুখের ত্বক পরিস্কার ও ময়েশ্চারাইজিংয়ের জন্য ক্লিনজিং মিল্ক ও সফট লোশনের মত পণ্য বেছে নিন। এবং টোনিং করার জন্য অ্যালকোহলবিহীন টোনার ব্যবহার করুন। যে ধরণের ফেসিয়াল মাস্ক ত্বক উষ্ণ ও গরম করে তুলে তা এড়িয়ে চলবেন।

৭। স্কিন কেয়ার প্রোডাক্ট কেনার সময় আপনার ত্বক অনুযায়ী প্রোডাক্ট কিনুন। সেনসিটিভ ত্বকে সাধারণত কোনও কিছুই সহ্য করা মুশকিল। তাই ব্র্যান্ডের গায়ের লেখা দেখে কিনুন, যে এটা কি ধরণের পণ্য এবং কি ধরণের ত্বকের জন্য প্রযোজ্য।

৮। ঘরে বসে ত্বক পরিস্কার করার জন্য ১ চামচ মধু, অ্যালোভেরা জেল ও একটি ডিমের কুসুম মিলিয়ে ত্বকে লাগান। ৫ মিনিট পর কিছুটা উষ্ণ গরম পানিতে মুখ ধুয়ে নিন।

৯। ত্বকের মরা কোষ দূর করতে ২ টেবিল চামচ ওটমিল ও অ্যালোভেরার জেলের সঙ্গে ২ চা চামচ চিনি ও ১ চা চামচ লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। ব্রাশের সাহায্যে ত্বকে লাগিয়ে দশ মিনিট হালকা হাতে ম্যাসেজ করুন। এবার গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। এভাবে প্রতি সপ্তাহে একবার করলে মরা কোষ ঝরে যাবে।

বিয়ের আগে  চুলের যত্নে যা করবেন

চুলের যত্নে নিয়মিত চুলের প্যাক ব্যবহার করলে ভালো উপকার পাবেন। চুলের ডগা ফেটে গেলে তা কেটে ফেলুন। এছাড়া নিয়মিত চুলের যত্ন নিতে নিচের প্যাকগুলো লাগাতে পারেনঃ

১। ২০ টি জবা ফুল, দুই চামচ মেথি ও দুটি আমলকী ১০ মিনিট ধরে ফোটান। এই তেলটি ছেঁকে কাঁচের জারে রেখে দিন। সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন এই মিশ্রণটি চুলে লাগান।

২। সমপরিমাণ পানি, রোজমেরি এসেনশিয়াল তেল ও অলিভ তেল একত্রে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। তারপর এই মিশ্রণ চুলে গোড়ায় লাগিয়ে হালকা কুসুম গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে মাথায় ৪৫ মিনিট জড়িয়ে রাখুন। তারপর কোনও হারবাল শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

৩। প্রতিদিন একটি ডিম মাথার ত্বক ও চুলে লাগিয়ে রেখে দিন। তারপর ২০ মিনিট পর ধুয়ে নিন। অথবা তিনটি অ্যালোভেরার পাতা থেকে জেল বের করে এতে এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে মাথার ত্বকে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে একবার করে তিনমাস এভাবে পরিচর্যা করুন।

৪। এক চামচ ক্যাস্টর অয়েল, এক চামচ নারকেল তেল, এক চামচ ভিনেগার, একটি পাকা কলা ও এক চামচ মধু মিশিয়ে মাথার চুলে চল্লিশ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এরপর পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। এই প্যাক চুলের রুক্ষতা দূর করে।

৫। নারকেলের দুধ, নিমপাতা বাটা ও পাতিলেবুর রস মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।

৬। একটি ডিস্ট্রিন ট্যাবলেট, পাতিলেবুর রস ও টকদই মিশিয়ে প্যাক বানান। এই প্যাকটি চুলের খুশকি দূর করে। প্যাকটি দু ঘণ্টা চুলে লাগিয়ে রেখে চায়ের লিকারে পাতিলেবুর রস মিশিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

৭। বিয়ের পনেরো দিন আগে থেকে ভালো কোনও বিউটি স্যালন থেকে ত্বক ও চুলের ট্রিটমেন্ট করিয়ে নিন। কমপক্ষে দুবার ফেসিয়াল করতে পারেন।

৮। বাড়তি উজ্জ্বলতার জন্য গোল্ড ফেসিয়াল, অক্সি-ব্রাইট ফেসিয়াল, পার্ল ফেসিয়াল ও ব্রাইটেনিং ফেসিয়াল করতে পারেন।

৯। দুই তিন দিন আগে ম্যানিকিওর, পেডিকিওর করে নিন। মুখে লোম বেশী থাকলে অনুষ্ঠানের আগে মুখে থ্রেডিং করে নিতে পারেন।  

১০। থ্রেডিং করতে না চাইলে হাত ও মুখে ফেয়ার পলিশ করে নিন।

১১। মেকআপের একদিন আগে আইভ্রূ শেপ করে নিবেন। নতুবা ত্বকে অ্যালার্জি হতে পারে। বিয়ের তিন চার দিন আগে ওয়াক্সিং করে নিন।

১২। চুল স্বাস্থ্যজ্জল দেখাতে অন্ততঃ দুইবার হেয়ার ট্রিটমেন্ট করুন। এজন্য প্রোটিন ট্রিটমেন্ট, হারবাল ট্রিটমেন্ট বা হেয়ার স্পা করতে পারেন।

এছাড়াও আরও কিছু প্রস্তুতি আছে যা বিয়ের আগে ভাগেই করে রাখা জরুরী। যেমন, বিয়ের আগের দিন হাতে মেহেদী লাগান। বিয়ের সাজের দিন পার্লারে যাওয়ার আগেই ফুল কিনে রাখুন। গহনা, শাড়ী, জুতাসহ সব জিনিস সঙ্গে রাখুন। মনের অতিরক্ত চাপ কমাতে ব্রিদিং বা ইয়োগা এক্সারসাইজ করতে পারেন। এছাড়াও বডি স্পা বা অ্যারোমা থেরাপি করাতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: