Skip to content

খুশকি থেকে মুক্তি পেতে পাঁচটি প্রাকৃতিক উপায়

মাথায় খুশকি থাকলে গাড় রঙের কাপড় পড়লে দেখা যায়, ঘাড়ের আশপাশ ভরে গেছে সাদা সাদা ছোট ছোট আঁশে। এটা আসলে কোনও গুরুতর সমস্যা নয়। কিন্তু, এটা সত্যিই বিরক্তিকর। তবে মাথায় খুশকি আছে কিনা তা নিশ্চিত হতে হলে ভালো করে পরীক্ষা করতে হবে। অনেক সময় মাথার মরা কোষকেও খুশকির মত মনে হতে পারে। দুটি সমস্যা যদিও একই রকম মনে হয়, কিন্তু এই দুটোর চিকিৎসা পদ্ধতি ভিন্ন। খুশকি দূর করার বিভিন্ন চুলের প্রসাধনীর পিছনে টাকা নষ্ট করার আগে কিছু প্রাকৃতিক উপায় ব্যবহার করে দেখতে পারেন। এগুলো প্রাকৃতিক, খুব ভালো প্রতিকার করে কিন্তু সস্তা।

dandruff-3961409

ভিনেগার

ভিনেগার দিয়ে চুল ধু’লে খুশকি দূর হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে আপেল সাইডার ভিনেগার অথবা সাদা ভিনেগার হচ্ছে সবচেয়ে ভালো। এটা ব্যবহার করা কিছুটা অদ্ভুত মনে হলেও চুলের গোড়া থেকে খুশকি দূর করতে অনেকটা যাদুর মত কাজ করে। কিন্তু এটা ব্যবহারের পর চুলে কিছুটা উৎকট গন্ধ হতে পারে, তাই কোন গুরুত্বপূর্ণ মিটিঙয়ের আগে এটা ব্যবহার করবেন না। সময়ের সাথে সাথে এই উৎকট গন্ধ দূর হয়ে যায়।

আপনার যা দরকার হবেঃ

  • আধা কাপ গরম পানি।
  • আধা কাপ অ্যাপল সাইডার ভিনেগার বা সাদা ভিনেগার।

কীভাবে ব্যবহার করবেনঃ

গরম পানি ও ভিনেগার একটি কাপে মিশান। আপনার চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী এই পরিমাণ কম-বেশী হতে পারে। এই মিশ্রণটি মাথায় স্প্রের সাহায্যে ব্যবহার করুন। কয়েক মিনিট ধীরে ধীরে ম্যাসেজ করুন এবং পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন (শুধু পানি ব্যবহার করবেন)। শাওয়ার নেওয়ার আগে ৮-১২ ঘন্টা অপেক্ষা করবেন। প্রতি সপ্তাহে এটা ব্যবহার করতে পারেন। অথবা দুই সপ্তাহ পর পর। অথবা যখন দরকার মনে করবেন।

বেকিং সোডা

বেকিং সোডা এমন একটি উপাদান যা প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই থাকে। এর বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে – এবং প্রতিবারই এটা যাদুর মত কাজ করে! আপনার চুলকে খুশকিমুক্ত করা হচ্ছে এর মধ্যে একটি।

আপনার যা প্রয়োজন হবেঃ

  • ১ টেবিলচামচ বেকিং সোডা
  • ১ কাপ পানি
  • কয়েক ফোঁটা রোজমেরি তেল (ঐচ্ছিক)।

কীভাবে ব্যবহার করবেনঃ
এক কাপ কুসুম গরম পানির সাথে এক চামচ বেকিং সোডা মেশান। আপনি চাইলে একটা পুরাতন শ্যাম্পুর বোতল ব্যবহার করতে পারেন। এই মশ্রন্টি বোতলে ভরে ভালো করে ঝাঁকান। তারপর তা মাথায় ব্যবহার করুন। যদি শ্যাম্পুর বোতল ব্যবহার করতে না চান তাহলে ভালো করে মিশিয়ে নিন। যদি সম্ভব হয়, তাহলে এক টেবিল চামচ শ্যাম্পুর সাথে এক চা চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। তার সাথে কয়েক ফোঁটা রোজমেরি এসেনশিয়াল তেল দিয়ে নিলে আরো ভালো ফলাফল পাবেন।

অ্যাসপিরিন

অ্যাসপিরিন কেবল মাথা ব্যথাই দূর করে না, সাথে সাথে খুশকিও দূর করে থাকে। অ্যাস্পিরিনে আছে উচ্চমাত্রার স্যালিসিলিক এসিড, যা অনেক খুশকী-নিরোধক শ্যাম্পুর মধ্যে থাকে। স্যালিসিলিক এসিডে এন্টি-ফাঙ্গাল এবং এন্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদানসমূহ আছে যা ফাঙ্গাসের কারণে সৃষ্ট মরা কোষ দূর করে। এছাড়াও অ্যাসপিরিন খুশকীর কারণে সৃষ্ট ত্বকের জ্বালা-পোড়া ভাব দূর করতে সাহায্য করে।

আপনার যা দরকার হবেঃ

  • ২ টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট
  • শ্যাম্পু

কীভাবে ব্যবহার করবেনঃ

অ্যাসপিরিন গুঁড়া করতে থাকুন, যতক্ষন না মিহি গুঁড়া হয়ে যায়। এই গুঁড়া আপনার নিয়মিত শ্যাম্পুর সাথে মিলিয়ে চুলে লাগান। ২ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন।

লেবু

লেবুর স্বাদ টক, কিন্তু এটা আপনার মাথার খুশকি দূর করতে সাহায্য করবে। এছাড়াও লেবুর রসের এসিডিটি মাথার ত্বকের ফাঙ্গাস নির্মূল করতে সহায়তা করে। এটাতে কোনও ক্যামিকাল ও সিনথেটিক উপাদান নেই যা আপনার ত্বক বা চুলের ক্ষতি করবে, কিন্তু আপনি পরিস্কার এবং সতেজ ঘ্রান পাবেন। তাই যখন খুশকি দেখা দিবে, তখন লেবুর রস ব্যবহার করতে পারেন।

যা প্রয়োজন হবেঃ

  • ৪ টেবিল চামচ তাজা লেবুর রস
  • ১ কাপ পানি

কীভাবে ব্যবহার করবেনঃ

প্রথমে আপনার আপনার মাথায় দু চামচ লেবুর রস লাগান। কিছুক্ষন এটাকে মাথায় রাখুন। তারপর এক কাপ পানির সাথে ২ চামচ লেবুর রস মেশান ও এটা দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। প্রয়োজন হলে প্রতিদিন ব্যবহার করুন! অথবা সপ্তাহে তিনদিন ব্যবহার করতে পারেন।

লবন

লবন হচ্ছে এমন একটি উপাদান যা আমরা প্রতিদিনই ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু আপনি জানেন কি, এটা খুশকি প্রতিরোধে একটি দারুন সমাধান? এটা অতিরিক্ত তেল এবং মরা কোষ দূর করতে যাদুর মত কাজ করে।

যা দরকার হবেঃ

৩ টেবিল চামচ এপসম সল্ট

কীভাবে ব্যবহার করবেনঃ

৩ টেবিলচামচ লবন সামান্য পানিতে গুলিয়ে মাথার ত্বকে দিন। ২-৩ মিনিট ম্যাসাজ করুন। সাথে সাথে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: