Skip to content

প্রাকৃতিক এন্টি-বায়োটিক যা ক্ষতিকর ব্যাক্টেরিয়া ধবংস করে

মানুষের পেটে বা অন্ত্রে অনেক ধরণের ব্যাক্টেরিয়া বা প্যারাসাইটিস সমূহ থাকে, যেগুলোর মধ্যে কিছু কিছু মারাত্মক রোগের সৃষ্টি করতে পারে। পেটের ভিতরের রোগ জীবানু ধবংস করার জন্য কোনও সহজ উপায় নেই, কারণ আপনি এখানে কোনও এন্টি-সেপ্টিক ব্যবহার করতে পারবেন না। কেবল কিছু জীবন রক্ষাকারী এণ্টি-বায়োটিক এক্ষেত্রে কাজে লাগতে পারে।

natural-antibiotic-8794346

আপনি যদি প্রায়ই পেটের পীড়া ও নানা সমস্যায় ভুগে থাকেন এবং এমন কোনও সমাধান চান যা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন, নিরাপদ ও সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক, তাহলে এই রচনাটি আপনার জন্য। এই প্রাকৃতিক এন্টিবায়োটিক ব্যবহার করে আপনার ভিতরের ব্যাক্টেরিয়া সম্পূর্ণ ধবংস অথবা হ্রাস করতে সক্ষম হবেন।

এছাড়াও এগুলো হজমের সমস্যা, অ্যানিমিয়া, ব্রঙ্কাইটিস এবং বন্ধ্যাত্ব দূরীকরণে অত্যন্ত ফলপ্রসূ। কারণ এগুলোতে এমন উপাদানসমূহ আছে যা এই রোগগুলো প্রতিরোধ করে।

উপাদানসমূহঃ

  • ২০ টি শুকনা ডুমুর বা তীন ফল।
  • ৫০ গ্রাম মানুকা মধু
  • অলিভ তেল এই পরিমাণ যাতে ডুমুর গুলো ডুবে যায়।
  • ২-৩ চামচ অ্যাপল সাইডার ভিনেগার

যেভাবে বানাবেনঃ

ডুমুরগুলো একটি বয়ামে ভরে বাকি উপকরণগুলো ঢেলে দিন। চামচ দিয়ে নাড়তে থাকুন, যতক্ষন না উপাদানগুলো ভালোভাবে মিশ্রিত হয়ে রং ছেড়ে দেয়। বয়ামের মুখ বন্ধ করে ২০ দিনের জন্য ভিজতে দিন। শুধুমাত্র মাঝে মধ্যে ভালোভাবে ঝাঁকিয়ে দিবেন, যাতে উপাদানগুলো খুব ভালো করে মিশ্রিত হয়।

যেভাবে সেবন করবেনঃ

– হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি –  এই ব্যাক্টেরিয়াটি গ্যাস্ট্রিক ও আলসারের জন্য দায়ী। প্রতিদিন সকালে খালিপেটে একটা করে ডুমুর খাবেন। যতক্ষন না বিশটা ডুমুর শেষ হয়ে যায়।

– এস্কেরিসিয়া কোলি – এই ব্যাক্টেরিয়া অন্ত্রে খাবারে বিষক্রিয়া সৃষ্টির জন্য দায়ী। প্রত্যেকবার খাবারের পূর্বে একটা করে ডূমুর খাবেন। এভাবে ৭ দিন চলবেন।

– সব ধরনের কৃমির জন্য – কৃমির কারণে নানা ধরণের রোগ এমনকি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। সারাদিনে ৫-৬ টি ডুমুর খেতে থাকুন। যতক্ষন না সমস্যা দূর হয়ে যায়। 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: