Skip to content

কীভাবে বানাবেন চালের গুঁড়ার ফেসিয়াল

ঘরে তৈরি ফেসপ্যাক ও ফেসমাস্ক পছন্দ করে না এমন মেয়ে খুঁজেই পাওয়া যাবে না। অন্য অনেকের মত আমিও এসব ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পছন্দ করি। এগুলো বানানো যেমন সোজা, তেমনই নিরাপদ। ফল পেতে যদিও কিছুটা দেরী হয়, কিন্তু নিয়মিত ব্যবহারে খুব ভালো ও স্থায়ী ফল পাওয়া যায়। কিছু কিছু মাস্ক ব্যবহার করার সাথে সাথেই আপনি পার্থক্য দেখতে পাবেন। বিশেষ করে যেসব মাস্কে সাইট্রিক এসিড বা লেবুর রস অথবা এসিটিক এসিড বা সিরকা ব্যবহার করা হয়।

আজকে আমি এমন একটি ফেসপ্যাক তৈরি করা নিয়ে আলোচনা করবো, যাতে মাত্র তিনটি উপাদান ব্যবহার করা হয়। এটা ডিমের মাস্কের মতই কাজ করে কিন্তু খুব সহজেই করা সম্ভব।

যা যা লাগবেঃ

  • চালের গুঁড়া (২ চামচ)
  • মধু (২ চামচ)
  • সবুজ চা অথবা চায়ের লিকার।

চালের গুঁড়া যেকোনও স্থানীয় দোকানে খুঁজে পাবেন। চাইলে সামান্য চাল ভিজিয়ে বেঁটেও নিতে পারেন। যারা দেশের বাইরে থাকেন, তারা মোটামুটি $৩ এর ভিতর চালের গুঁড়া কিনতে পাবেন। এখন আপনি হয়তো চিন্তা করছেন, চালের গুঁড়া দিয়ে এমন কি হবে। আসলে চালের গুঁড়া ত্বকের উপরিভাগে খুব দ্রুত শুকিয়ে যায়, ফলে আপনার ত্বক উজ্জ্বল এবং দাগহীন হবে। ত্বক নরম করতেও চালের গুঁড়ার জুড়ি নেই।

অন্য উপাদানটি হচ্ছে, মধু, যা মূলত আপনার ত্বককে আদ্র করে তুলে ও ত্বকের গভীরে পুষ্টি যোগায়। তারপর আমরা আন্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কিছু গ্রিন-টি বা সবুজ চা ও ব্যবহার করবো।

বানাতে যা যা লাগবেঃ

  • একটি ছোট পাত্র
  • চা চামচ
  • মেকাপ ব্রাশ। (অথবা অন্য কিছু যা দিয়ে আপনি ত্বকে এই মাস্কটি প্রয়োগ করবেন)

যেভাবে বানাবেন

একটি পাত্রে দুই চামচ মধু ও দুই চামচ চালের গুঁড়া নিন। তারপর কিছুটা সবুজ চা যোগ করুন।

img_1835smaller-1024x826-6173840

সব একত্রে মেশান।

img_1846smaller-1024x792-5955093

(মুখ এবং চোখের অংশ বাদে) এই মাস্কটি আপনার ত্বকে লাগান। ১০ মিনিট রাখুন। আপনি যদি বেশী পরিমানে চালের গুঁড়া মেশান, তাহলে মাস্কের রংটি একেবারে সাদা হয়ে যাবে। যদি অনেক বেশি চায়ের লিকার মেশান তাহলে খুব পাতলা হয়ে যাবে। কিন্তু আপনার পছন্দ অনুযায়ী আপনি পরিমাণ কমবেশি করে নিতে পারেন। ফলাফল একই রকম পাবেন।

যেই মেকাপ ব্রাশটি মাস্ক দেয়ার জন্য ব্যবহার করবেন তা খুব পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলবেন। যাতে কোন কিছুই না থাকে। আমি অবশ্য এজন্য একটি আলাদা মেকাপ ব্রাশ ব্যবহার করেছি।

২০ মিনিট পর আপনার ত্বক ধুয়ে ফেলবেন। এবং লক্ষ্য করে দেখুন, আপনার ত্বক আগের চেয়ে কোমল ও পেলব মনে হচ্ছে। সপ্তাহে একবার এই মাস্কটি ব্যবহার করলে ত্বক সবসময়ই পরিষ্কার থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: