Skip to content

বেসিক কিছু হ্যান্ড এমব্রয়ডারি স্টিচ

এমব্রয়ডারি শুরু করতে আপনাকে প্রথমে একটি ভালো ডিজাইন খুঁজে বের করতে হবে।অনলাইনে এমন অনেক সুন্দর সুন্দর ডিজাইন পাওয়া যায় যা দিয়ে অনায়াসে আপনি আপনার জামা নকশা করতে পারবেন। পছন্দমতো ডিজাইন খুঁজে পাওয়ার পর এবার তা প্রিন্টারে প্রিন্ট করে নিন। অথবা ল্যাপটপের স্ক্রিনের উপর ট্রেসিং পেপার ধরে হালকা হাতে ড্রয়িং পেন দিয়ে ডিজাইনের খসড়া তৈরি করে নিন। হাতে এমব্রয়ডারি করার একটি সুবিধা হচ্ছে আপনি চাইলে যেকোনো রঙের কাপড়ের ওপর যেকোনো রংয়ের সুতা দিয়ে নকশা তৈরি করতে পারেন। এবং পছন্দমত যেকোন স্টিচ এমব্রয়ডারি করতে ব্যবহার করতে পারেন। তবে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন আপনার ডিজাইনটি যেন কাপড়ের উপর ফুটে ওঠে বা সুন্দর দেখায়।

শুরুতে আপনি কিছু সাধারণ স্টিচ নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন। এর মধ্যে ব্যাক স্টিচ অন্যতম। এটা দিয়ে আসল এমব্রয়ডারী শুরু করার আগে ডিজাইনটির উপর আউটলাইন তৈরি করতে পারেন। এই স্টিচ দেখতে অনেকটা মেশিনের সেলাইয়ের মত এবং এই সেলাইটি করাও খুবই সহজ।

কিভাবে তৈরি করবেন ব্যাক স্টিচঃ

কোনও ডিজাইনের প্রথম বিন্দু থেকে এক স্টিচ এগিয়ে সুঁই তুলুন। তারপর আগের বিন্দুতে ফিরে যান। আপনি সলিড আউটলাইন চান নাকি ফাঁকা ফাঁকা আউটলাইন চান, তার উপর ভিত্তি করে স্টিচ ঘন বা হালকা হবে। আউটলাইন তৈরি করার জন্য এটাই সবচেয়ে ভালো স্টিচ। ব্যাকস্টিচ অনেক সময় আলগা বা বেশ ফাঁকা ফাঁকাও হয়, যা মূল ডিজাইনে ব্যবহার করা যায় না। ব্যাক স্টিচের দুটি প্রকার আছে। একটি হলো ক্রস বা কোনাকুনিভাবে তুলতে হয় ও অপরটি একেবারেই সমান্তরালভাবে তুলতে হয়।

back-stitch-2354665

কিভাবে তৈরি করবেন স্যাটিন স্টিচঃ

স্যাটিন স্টিচ বা ভরাট স্টিচ দিয়ে আপনি কোনও একটি ফেব্রিকের বিভিন্ন অংশ ফুল পাতা তৈরি করে তা ভরাট করার কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। এটা অন্যান্য স্টিচের তুলনায় সুন্দর ও ভরাট ইফেক্ট তৈরি করে যা বেশ চকচকে, নমনীয় ও অন্যান্য স্টিচের চেয়ে বেশী সুন্দর ও প্রকাশমান হয়।

how-to-do-satin-stitch-by-hand-6938255

এমব্রয়ডারী মেশিন দিয়েও সাটিন স্টিচ তৈরি করা যায়। সাটিন স্টিচ তৈরি করতে পিছন থেকে সুতা তুলে গিঁট দেয়া হয়। এবং এক পাশ থেকে ছোট ছোট স্টিচ তুলে পুরো ডিজাইনটি পূর্ণ করা হয়। সাটিন স্টিচের জন্য আপনাকে সব সময় একই দিক থেকে সুতা তুলে অন্যপাশে নামাতে হবে। যা হয়তো উপর থেকে নিচের দিকে অথবা নিচ থেকে উপর দিকে হয়ে থাকে।

এক ধার থেকে সুতা তোলার কারণে সুতাগুলো সোজা থাকে। আগে যে জায়গা থেকে সুতা তুলেছেন সেই একই জায়গা থেকে সমান্তরাল ভাবে সুতা তুলে গেলে আপনার স্টিচগুলো সোজা হবে। সাটিন স্টিচ তৈরি করা খুবই সহজ এবং স্টিচগুলোও যথেষ্ট শক্ত ও পরিচ্ছন্ন হয়ে থাকে।

কিভাবে তৈরি করবেন স্প্লিট স্টিচঃ

স্প্লিট স্টিচঃ স্প্লিট স্টিচ ব্যাকস্টিচের মতই কিন্তু এর সঙ্গে ব্যাকস্টিচের একটি উল্লেখযোগ্য পার্থক্য আছে। এক্ষেত্রে সেলাইয়ের সুতা নীচ থেকে উঠিয়ে একটি স্টিচ তৈরি করতে হবে। তারপর সুঁই নামিয়ে আগের সেলাইয়ের একেবারে মাঝ বরাবর সুঁই উঠিয়ে আরকেটি সেলাই তৈরি করতে হবে। এভাবে বাকি সেলাইগুলোও করে নিতে হবে। শুরুতে সুতাটি নীচ থেকে উঠিয়ে একটি স্টিচ তৈরি করতে হবে। এবার প্রথম স্টিচের মাঝখান থেকে সুতাটি ভাগ করে আরেকটি স্টিচ উঠাতে হবে।

split-stitch-4905528

এর ফলে একটি সম্পূর্ণ স্প্লিট স্টিচ তৈরি হবে। এবার দূরত্ব একই রেখে একই প্রক্রিয়ায় দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্টিচ তৈরি করুন এবং এই প্রক্রিয়াটি বারবার পুনরাবৃত্তি করুন। এর ফলে খুব সহজেই বুঝতে পারবেন ফলাফলটি কত পরিচ্ছন্ন ও শক্তিশালী হয়। ব্যাক স্টিচের মত স্প্লিট স্টিচও আউটলাইন তৈরি করতে অসাধারণ কার্যকর।

যদি আপনার তাড়াহুড়া থাকে, তাহলে মোটেও স্প্লিট স্টিচ ব্যবহার করবেন না, কারণ এটা শেষ করতে একটু বেশিই সময় লাগে। এছাড়াও যদি একটু বড় জায়গা ভরতে হয়, তাহলে সব সময়ই ব্যাকস্টিচ ব্যবহার করবেন।

কিভাবে তৈরি করবেন ফ্রেঞ্চ নটঃ

ফ্রেঞ্চ নটঃ ফ্রেঞ্চ নট উপরের সবগুলো স্টিচের তুলনায় একটু কঠিন। একটু প্র্যাকটিস করলেই আপনি খুব সহজেই ফ্রেঞ্চ নট তৈরি করতে পারবেন। ফ্রেঞ্চ নট সাধারণতঃ এমনসব টেক্সচার বা আঁকিবুঁকি ভরাট করার কাজে যা ছোট ছোট ফুল বা পরাগ রেনু তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়। এটা দিয়ে খুব সুন্দর ডিজাইন বা টেক্সচার তৈরি করা সম্ভব।

মোটামুটি এই কয়েকটি বেসিক স্টিচ দিয়ে যেকোনো ধরনের ডিজাইন ও প্যাটার্ন তৈরি করা সম্ভব। তাই প্রাথমিকভাবে এমব্রয়ডারি করতে এই কয়েকটি স্টিচে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

french-knot-5910283

ফ্রেঞ্চ নট তৈরি করার সময় অবশ্যই নিচের দিক থেকে একটি গিঁট দিয়ে নিবেন যাতে সুতাটি জায়গামতই থাকে। এবার নীচ থেকে সুতাটি টেনে উপরের দিকে তুলুন। এবার সুতার গোঁড়ার দিক থেকে সুঁইয়ের মাথায় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে সুতা পেঁচিয়ে নিন। এক অথবা দুইটি প্যাঁচ দিয়েই সুতা যেদিক দিয়ে তুলেছেন সেদিকে সুঁইটি নামিয়ে নিন। মনে রাখবেন, যতগুলো প্যাঁচ দিবেন, ফ্রেঞ্চ নটের গিঁট কিন্তু ততই বড় হবে।

এভাবে একেবারে নিচের দিকে নামিয়ে দিলে গিঁটটি যখন বেশ শক্ত ও মজবুত হয়ে যাবে, তখন একই প্রক্রিয়া পুনরাবৃত্তি করে নির্দিষ্ট জায়গাটি ভরাট করে নিন। এক্ষেত্রে, ফ্রেঞ্চ নটের গিঁটগুলো মজবুত রাখতে ফেব্রিকটি যথাসম্ভব টান টান রাখতে হবে। কিছুতেই ঢিলে করা যাবে না। তা না হলে ফ্রেঞ্চ নটগুলো সুন্দর ও মজবুত হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: