Skip to content

ইলম ও আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য বিশেষ দু’আ

ইলম ও আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য বিশেষ দু'আ

মানুষের জীবনে অনেক লক্ষ্য আছে। এর মধ্যে প্রধান এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি লক্ষ্য হচ্ছে, আল্লাহর সন্তুষ্টি হাসিল করা। বলতে গেলে মানুষের জীবনের প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য আসলে এটাই হওয়া উচিৎ।

কারণ, বেহেশতে মানুষ সবকিছু পাওয়ার পরও আল্লাহর সন্তুষ্টি চাইবে। সব দেয়ার পর আল্লাহ তায়ালা বলবেন, বান্দা! তুমি আমার কাছে কি চাও। তখন তাঁরা বলবে, “ইয়া আল্লাহ! আমরা আপনার সন্তুষ্টি চাই”। তখন, আল্লাহ তায়ালা তাঁদের উপর সন্তুষ্ট হয়ে যাবেন।

তবে, দুনিয়াতেই আল্লাহর কাছে তার সন্তুষ্টি আমাদের চাওয়া উচিৎ। এজন্য আমরা নিচের দু’য়াটি করতে পারি।

আল্লাহুম্মা ওয়াফফিকনা লিমা তুহিব্বু ওয়া আরদ্বা মিনাল কাওলী ওয়াল ফী’কলী ওয়াল আমালী ওয়ান্নিয়্যাতি ওয়াল হাদ’ঈ ইন্নাকা আ’লা কুল্লি শাই’য়িন কাদীর।

অর্থঃ হে আল্লাহ আমাদেরকে তাওফীক দান করুন, আপনার পছন্দমাফিক কথা বলার, কাজ করার, আ’মাল করার, নিয়্যত করার এবং আপনার পছন্দানুরুপ চালচলন অবলম্বন করার তাওফীক দান করুন।

জ্ঞান চর্চার অনেক মাধ্যম দুনিয়াতে আছে। দুনিয়াতে চলতে গেলে দুনিয়াবী জ্ঞান লাগবেই। তবে, দুনিয়াবী জ্ঞানের তুলনায় আখিরাতের জ্ঞান অনেক বেশী দামী ও মূল্যবান। কারণ, দুনিয়ার জীবন ক্ষণস্থায়ী ও আখিরাত চিরস্থায়ী। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে যে, দুনিয়ার জ্ঞান উপার্জন যেনো আমাদেরকে আখেরাতের জ্ঞান উপার্জন করা থেকে গাফেল না করে।

এজন্য, বিশেষ করে ইসলামের জন্য বক্ষ সম্প্রসারণের দু’আ করা জরুরী। ইসলাম তথা দ্বীনী জ্ঞান অর্জনের জন্য বক্ষ সম্প্রসারণের দু’আ হচ্ছে নিন্মরূপঃ

আল্লাহুম্মাশরাহ সুদুরানা লিল ইসলাম। ওয়া হাব্বিব ইলাইনা লিল ঈমান। ওয়া ঝায়্যিনহু ফী কুলুবীনা ওয়া কাররীহ ইলাইনাল কুফুরা ওয়াল ফুসুকা ওয়াল ইস’ইয়ান। আল্লাহুম্মায’আলনা মিনার রাশীদিনা ওয়াল মাহদীয়্যিনা ওয়ায আলনা মিনাল মুত্বা তাহহীরীন। ওয়ায আলনা মিন ঈবাদীকাস সালেহীন। ওয়া মিনাল্লাযিনা লা খাওফুন আলাইহিম ওয়ালা হুম ইয়াহঝানুন।

অর্থাৎঃ “হে আল্লাহ! আমাদের বক্ষকে ইসলামের জন্য সম্প্রসারিত করে দিন এবং ঈমানের মতো মহাদৌলতকে আমাদের নিকট প্রিয় করে দিন এবং আমাদের অন্তরকে (ঈমানের দ্বারা) সুসজ্জিত করে দিন এবং আমাদের নিকট কুফর, পাপ ও নাফরমানীকে অপছন্দনীয় করে, ঘৃণীত করে দিন। হে আল্লাহ! আমাদেরকে হিদায়াত প্রাপ্ত লোকদের দলভুক্ত করুন এবং যাদের কারণে অন্যরাও হিদায়াতপ্রাপ্ত হয় তাঁদের দলভুক্ত করুন। এবং আমাদেরকে পবিত্র লোকদের অন্তর্ভুক্ত করুন এবং আমাদেরকে আপনার নেক বান্দাদের দলভুক্ত করুন এবং ঐ সমস্ত লোকদের দলভুক্ত করুন আখিরাতে যাদের কোনও ভয় ভীতি নেই এবং যারা চিন্তিতও হবে না।”

দ্বীন হাসিলের উদ্দেশ্যে তথা দুনিয়াতে দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার জন্য দেশ বিদেশে সফর করা অনেক বড় একটি কাজ। আল্লাহর তাওফীক ছাড়া এই কাজটি কারো জন্য সম্ভব নয়। আল্লাহর পথে সমগ্র দুনিয়া সফর করার জন্য তাই আমাদেরকে অবশ্যই দু’আ করতে হবে। এজন্য একটি সুন্দর দু’আও আছে। আর তা হচ্ছেঃ

আল্লাহুম্মা আখরিযনা ফী সাবীলিকা ইলা মাশারিকাল আরদ্বি ওয়া মাগারিবাহা দা’ঈমান আবাদা।

অর্থঃ “হে আল্লাহ! আমাদেরকে আপনার রাস্তায় জমিনের তথা ভুূপৃষ্ঠের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত পর্যন্ত সকল সময়ে বের করুন। অর্থাৎ, দ্বীনের পথে সফর করার ও মেহনত করার তাওফীক দান করুন।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: